ধামরাইয়ের ইউএনও আবুল কালামের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

0
19

ষ্টাফ রিপোর্টার: প্রধানমন্ত্রীর কার্য্যালয়ের প্রকল্প ‘জমি আছে ঘর নেই,তার জমিতে ঘর নির্মান প্রকল্প-২০১৯’ এর আওতাধীন ঢাকা ধামরাই উপজেলায় ২ শত ৩৮টি ঘর নির্মানের জন্য  ২ কোটি ৩৮ লাখ বরাদ্ধ দেয়া হয়। আর এই প্রকল্পের অধীনে একজনের জমি দখল করে আরেকজনের জন্য ঘর নির্মান করে দিয়েছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম। এঘটনায় জমি হারিয়ে বিচারের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছে জমির মালিক আমির হামজা। জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর কার্য্যালয়ের অধীনে এই প্রকল্পের মাধমে ঢাকার ধামরাই উপজেলায় ২শ ৩৮ টি ঘর নির্মানের বরাদ্ধ দেয়া হয়। প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির  সভাপতি উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা আবুল কালাম ও সাধারন সম্পাদক উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম।

কিন্ত প্রকল্পের সভাপতি  ইউএনও আবুল কালাম নিজ ক্ষমতা বলে প্রকল্পের সাধারন সম্পাদক পিআইও শহিদুল ইসলামকে বাদ দিয়ে নিজেই প্রকল্পের ঘরের জন্য নিম্ন মানের নির্মান সামগ্রী ক্রয় করেন। ইউএনও আবুল কালাম তার নিজস্ব লোক দিয়ে ঘর নির্মান কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। নিম্নমানের টিন, কাঠ, খুটি দিয়ে ঘর নির্মান করলেও প্রতিটি ঘরের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্য্যালয় থেকে ১ লাখ টাকা বরাদ্ধ থাকলেও প্রকল্পের সভাপতি ইউএনও আবুল কালাম অনিয়মের মাধ্যমে প্রতিটি ঘরের জন্য ৪০/৪৫ হাজার টাকা খরচ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

প্রকল্পের শর্তানুসারে যার জমি আছে ঘর নেই, তাকেই কেবল ঘর নির্মান করে দেয়া হবে। অথচ এই শর্তটি ভঙ্গ করে  সানোড়া গ্রামে রাজ্জাকের ছেলে আনোয়ার হোসেনের ৩/৪ টা ঘর থাকা সত্ত্বেও ইউএনও   আনোয়ারের প্রতিবেশী সাংবাদিক আমির হামজার জমির কিছু অংশ দখল নিয়ে উক্ত জমিতে আনোয়ারের জন্য ঘর নির্মান করেছে। সাংবাদিক আমির হামজা এতে বাধাঁ দিলেও ইউএনও তাতে কর্ণপাত করছে না।

এলাকাবাসী জানায়, ঘর নির্মানের সামগ্রী পরিবহনের জন্য প্রতিটি ঘরের মালিককে ১০/১২ হাজার টাকা গুনতে হয়েছে। আর এই ঘর পাওয়ার জন্য ঘরের মালিকদের ১৫/২৫ হাজার টাকা ঘুষ দিতে হয়েছে। হত দরিদ্র পরিবার যাদের ঘর নেই তাদের জন্য প্রধান মন্ত্রী কার্য্যালয় থেকে এই ঘর বরাদ্ধ হলেও ইউএনও আবুল কালামের দুর্নীতি, অনিয়মের কারনে প্রকৃত ঘরহীনরাই ঘর পায়নি এই প্রকল্পের অধীনে। এব্যাপারে ধামরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম বলেন, এধরনের কোন অভিযোগ থাকলে আমরা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করব।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

2 + 4 =