ঢাকা নাগরিকদের জন্য অবাসযোগ্য হিসেবে পরিগণিত হচ্ছে

0
258

রাজধানী জুড়ে ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জমজমাট প্রচারণা চলছে। দেওয়া হচ্ছে পরস্পরের ইশতেহার। ঢাকার চাকাকে সচল করার অঙ্গীকারে ব্যস্ত প্রার্থীরা। সাধারণ ভোটাররা ভোট দিতে পারবে কিনা, তা নিয়ে চিন্তিত।ঢাকার ইতিহাস প্রায় পাঁচ শ বছরের। এ ইতিহাস গৌরবের। একসময় ঢাকার ছিল বসতির জন্য আদর্শ জায়গা। ঢাকার বসতি মানে সবদিক দিয়ে মঙ্গলজনক। কালক্রমে আধুনিকতার এ যুগে এসে ঢাকা নাগরিকদের জন্য অবাসযোগ্য হিসেবে পরিগণিত হচ্ছে। ঢাকার যানজট থেকে শুরু করে মশার অত্যাচার ছিল।

হালে সে জায়গায় দখল নিয়েছে প্রাণঘাতী ডেঙ্গু মশা। ম্যালেরিয়ার জায়গায় ডেঙ্গু মশা নিজের অবস্থান পোক্ত করেছে। আর এ সুবাদে জনপ্রতিনিধি ও সিটি করপোরেশনের একশ্রেণীর কর্মকর্তা নিজেদের পকেট ভারী করেছে।

সিটি করপোরেশন নির্বাচনে এবার মনোয়ন পাননি মি. টেন পার্সেন্ট হিসেবে পরিচিত কথিত এক জনপ্রতিনিধি। ব্যাপারটি সচেতন জনগোষ্ঠী ভালো চোখে দেখছেন। তবে মূল দলগুলোর মেয়র প্রার্থীদের আগের চেয়ে কিছু ক্লিন হিসেবে দেখা হচ্ছে। যদিও দুজনের বাবাকে নিয়ে প্রশ্ন আছে।

হালে ঢাকাকে ক্লিন করতে জনগণের কিছুটা দৃষ্টি কেড়েছিলেন আনিসুল হক। তিনি আজ মরহুম। অন্যরা তাকে ফলো করার চেষ্টা করছেন। বিএনপির মহাসচিবসহ দলের দুই মেয়র প্রার্থী তার কবর জেয়ারত করেছেন। বিষয়টি সব মহলে প্রশংসিত হয়েছে। রচনা হয়েছে সৌন্দর্য।

সিটি নির্বাচন প্রচারণার ক্ষেত্রে বিকট শব্দে মাইক ব্যবহার যন্ত্রণার কারণে পরিণত হলেও নির্বাচন কমিশন রহস্যজনক নীরব। এতে একদিকে যেমন শব্দদূষণ ঘটছে, তেমনি আসন্ন এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষার্থীদের লেখা-পড়ায় মারাত্মকভাবে বিঘ্ন সৃষ্টি করছে।

প্রচার-প্রচারণায় এতদিন হালকা-পাতলা ধাক্কাধাক্কি, সোরগোল ও হামলা চলার অভিযোগ থাকলেও আজ সরাসরি গুলি চলানোর অভিযোগ করেছেন এক মেয়র প্রার্থী। হামলার চিত্র দেখিয়েছে কয়েকটি গণমাধ্যম। রাজধানীর গোপীবাগে দুপুরের দিকে এ ঘটনার সূত্রপাত।

নির্বাচনে মাঠে প্রার্থীদের প্রচারণা যত বাড়ছে, ততই বাড়ছে সাধারণ মানুষের অংশগ্রহণ। নানা কারণে অতীতে যারা ভোট দিতে পারেননি, তাদের মধ্যে একটা উত্তেজনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তারা ভোট দেওয়ার সুযোগ পেলে মিরাকেল ঘটে যেতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।


ভোটের হাওয়ায় একদিকে যেমন উন্নয়নের প্রচারণা চলছে, অন্যদিকে গ্যাস-বিদ্যুৎ থেকে শুরু করে ব্যাংক লুট, শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারিসহ নানা দুর্নীতির কথা সমানতালে তুলে ধরা হচ্ছে। ভোটের মাধ্যমে এর জবাব দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়। বলা হচ্ছে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখার কথাও।

নাগরিকরা ঢাকাকে সচল রাখতে এবং চলমান পরিবেশ বিপর্যয় রোধে কথা নয় কার্যকর ও দৃশ্যমান বাস্তবতা দেখতে চায়। বসবাসের জন্য অবাসযোগ্য তালিকা থেকে ঢাকাকে দ্রুত বাসযোগ্য স্থান শুধু নয়, সবুজায়নও দেখতে চায়। আরো চায় এটির বাতাস ও পানিকে সব ধরনের দূষণমুক্ত।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

three × four =