সোনারগাঁয়ে জমি জবর-দখল করে ময়লা পানি নিষ্কাশনের পাইপ স্থাপন

0
795

সোনারগাঁ প্রতিনিধিঃ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে চৈতি কম্পোজিট লিমিটেডের বিরুদ্ধে জোরপূর্বক অন্যের জমি জবর-দখল করে তার উপর ডাইংয়ের দূষিত পানি নিষ্কাশন পাইপ বসানোর অভিযোগ উঠেছে। জমির মালিক শাকিল বিদেশে থাকায় তার স্ত্রী সাদিয়া নাসরিন বাদী হয়ে সোনারগাঁ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।এলাকাবাসীর সুত্রে-আগেও একই অভিযোগে স্থানীয় সাংসদের হস্তক্ষেপে অবৈধভাবে দখল ও ডাইংয়ের দূষিত পানি নিষ্কাশনের জন্য পাইপ বসানো বন্ধ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরোজ্জামানকে কল করলে তিনি ছুটিতে আছেন জানায় এবং ওসি তদন্তকে কল করতে বলে। অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে সোনারগাঁ থানার ওসি তদন্ত শরীফ বলে, এস আই পংকজকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। আজকে বসে এ ব্যাপারটা দেখার কথা।এস আই পংকজ পুরা ব্যাপারটা বলতে পারবে। এ ব্যাপারে সোনারগাঁ থানার এস আই পংকজ জানায়, আজ ঘটনাস্থলে গিয়ে বসেছে তবে পাইপ কাদের জায়গায় তা নির্ধারন করা সম্ভব হয়নি। আগামী শনিবার সার্ভেয়ার আসবে, মেপে দেখা হবে কার জায়গায় পানি নিস্কাসনের পাইপ বসানো হয়েছে। যদি চৈতির জায়গায় পাইপ বসানো না হয়ে থাকে তাহলে তা সরিয়ে দেয়া হবে বলেছে চৈতির কর্মকর্তা। এব্যাপারে চৈতি কম্পোজিট লিমিটেডের ডিজিএম বদরুলকে তার মোবাইলে কল করে পাওয়া যায়নি। এব্যাপারে চৈতি কম্পোজিট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কালামকে তার মোবাইলে কল করে পাওয়া যায়নি। এব্যাপারে ভোক্তভোগী সাদিয়া নাসরিন জানায়, ভুক্তভোগীর স্বামী প্রবাসী শাকিল রানা, রানার বড় ভাই ও বাবা বিদেশে আছে। এই সুযোগে তাদের জায়গা দখল করে ডাইং এর পানি নিষ্কাশনের জন্য পাইপ বসানোর কাজ শুরু করে। এসময় আমি ও পরিবারের অন্য সদস্যরা কাজে বাধা দিলে তাদেরকে কোম্পানির পালিত ভাড়া করা সন্রা।য়সীরা প্রাণনাশের হুমকি দেয় এবং আমাদের জায়গা দখল করে ডাইং এর পানি নিষ্কাশনের জন্য পাইপ বসানোর কাজ করছে।

আমার বাসার চারদিক দুষিতপানি দিয়ে ভরা, মানবতার জীবনযাপন করছি আমরা ও এলাকাবাসী। আমি বাদী হয়ে গত কয়েকদিন আগে সোনারগাঁ থানায় অভিযোগ করেছি। আজ আমি বাদী হয়ে আরেকটি অভিযোগ সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট করেছি। এ ব্যাপারে সোনারগাঁ উপজেলা সহকারী ভুমি কর্মকর্তা আল মামুন জানায়- আমি ব্যাপারটি জানি না। ইউনো স্যার বললে সাথে আইনত ব্যবস্থা নিব। এ ব্যাপারে সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইদুল ইসলাম বলেন- আমি বিষয়টি গুরুত্বসহকারে দেখব এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিব। এ ব্যাপারে সোনারগাঁ আসনের সাংসদ লিয়াকত হোসেন খোকাকে কল করে তার মোবাইল ফোন ব্যস্ত পাওয়া যায়। জানা যায়, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে অবস্থিত চৈতি গ্রুপের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে সাধারণ অসহায় মানুষের জমি, সেই সাথে চৈতী কম্পোজিটের বিষাক্ত পানিতে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে এলাকাবাসী। উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন যাবৎ চৈতির ডাইংয়ের দূষিত পানি ফেলে সোনারগাঁয়ের টিপুরদি এলাকায় মারাত্মক পরিবেশ দূষণ করছে, ফলে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে বহুবার প্রতিবাদ, বিক্ষোভ, স্মারক লিপি ও লিখিত অভিযোগ করা হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। দোষীদের বিরুদ্ধে কোণ ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

12 − 4 =