হিরো আলমের বিরুদ্ধে ‘অনৈতিক’ প্রস্তাবের অভিযোগে তরুণীর জিডি

0
336

আকাশ নিবির:
আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলমের বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনৈতিক প্রস্তাব ও  প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগে শারমীন আক্তার সাথী নামে এক তরুণী সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। গতকাল শনিবার রাজধানীর হাতিরঝিল থানায় এই জিডি করেন লিপিবদ্ধ জিডি নম্বর ১১৭২। তরুণী পেশায় একজন নার্স। তরুণী দাবি করেন অনন্ত জলিলের নতুন ছবিতে কাজের সুযোগের কথা বলে অনৈতিক প্রস্তাব দিয়ে বসে। সাথী শখের বসে মাঝেমধ্যে স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মিউজিক ভিডিও করেন।

তবে হিরো আলম বিষয়টি সম্পূর্ণ অস্বীকার করে বলেন, আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে এমন করা হচ্ছে। আপনি দেখবেন ঐ স্ক্রিনশট আমার নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে যায়নি। আমি ব্যবহার করি Hero alom bogura নামের অ্যাকাউন্ট। কিন্ত মেয়েটির কাছে মেসেজ গিয়েছে Hero alom নামের একটি অ্যাকাউন্ট থেকে। কিন্তু সেখানে দেখা যায় তিনি সেটি এডিট করে দিয়েছেন। এর আগেও তার দ্বিতীয় বউয়ের একটা কাবিননামাও তাকে এডিট করতে দেখা যায়। যদিও তিনি বর্তমানে সংসদ সদস্য না হলেও তিনি একাধিক এমপি হিরো আলম নামের আক্ষা দিয়েও তাকে আইডি চালাতে দেখা যায়। যা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সাধারণ ডায়েরিতে তরুণী অভিযোগ করেছেন, ‘হিরো আলম বগুড়া নামে ফেসবুক থেকে একাধিকবার আমার ফেসবুকে ( সাথী আক্তার) অশ্লীল ভাষায় বিভিন্ন কু-প্রস্তাব দিতে থাকেন। আমাকে বিভিন্নভাবে সমাজের কাছে হেয় করার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যান। বিষয়টি নিয়ে মুখ খুললে আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে হিরো আলম আমাকে ফোন করে প্রাণনাশের হুমকি দিতে থাকেন।’

সাথী আক্তার নামে ওই তরুণী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘হিরো আলমের দ্বিতীয় স্ত্রী নুসরাত আমার পরিচিত। আপনি তার সাথে কথা বললেই বুঝতে পারবেন আসলে সে ওইরকম প্রস্তাব দিতে পারে কি না। আমাকে প্রথমে একবার বাজে ইঙ্গিত দিয়ে মেসেজ দিয়েছিল আমি সেটা ইগনোর করেছিলাম। পরে সে আমাকে অনন্ত জলিলের ছবিতে কাজের সুযোগ করে দেবে, কলকাতায় নিয়ে কাজ দেবে-এমন কথা বলে আমাকে অনৈতিক সম্পর্কের প্রস্তাব দেয়।’

হিরো আলম অবশ্য ফেসবুক লাইভে এসে তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করেন। এছাড়াও তার পেছনে কারা কলকাঠি নাড়ছে সেসব কথাও বলেন। এছাড়াও হিরো আলম আসলেই Hero alom bogura নামক একটি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করেন। এছাড়াও তার HERO ALOM নামের একটি ফেসবুক পেইজ রয়েছে। 

অন্যদিকে এই ভাইরাল আলম ওরফে আশরাফুল আলমকে নিয়ে সিলেটের ক্রাইম নামক অনলাইন তাকে প্রধান্য দিয়ে একটি নিউজ করেন। যেখানে তিনি সকল সাংবাদিক মহলকে হেয় করেন। এ প্রসঙ্গে ‘অপরাধ বিচিত্রা’র সম্পাদক এস এম মোরশেদ জানান, ‘যেখানে এই বিষয়টি নিয়ে মেয়েটি নিজে গিয়ে থানায় অভিযোগ করেছেন সেখানে কিভাবে সেই সাংবাদিক তাকে সরাসরি তাকে সাপোর্ট করেন। বিষয়টি খুব দুঃখজনক। 

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

four + 3 =