অবিলম্বে ক্রসফায়ার-গুম বন্ধ ও প্রতিটি ক্রসফায়ার-গুমের বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবিতে মানববন্ধন

0
68

৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য’র উদ্যোগে অবিলম্বে ক্রসফায়ার-গুম বন্ধ ও প্রতিটি ক্রসফায়ার-গুমের বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সমন্বয়কারী ও সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সামছুল আলমের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী) সিপিবি(এম)’র সাধারণ সম্পাদক কমরেড ডা. এম. এ. সামাদ, কৃষক মোর্চার আহŸায়ক মোহাম্মদ মাসুম, পিডিবি’র ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশীদ, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী) সিপিবি(এম)’র কেন্দ্রীয় সদস্য সামছুল হক সরকার, সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য সিরাজুল ইসলাম মাস্টারংং সহ আয়োজক সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ।

বক্তারা বলেন, “বর্তমান শেখ হাসিনার সরকার গত ১২ বছর যাবৎ সারাদেশে পুলিশ ও র‌্যাব দিয়ে বিচার বহির্ভূত ভাবে মানুষকে ক্রসফায়ার দিয়ে যাচ্ছে। এই ক্রসফায়ার ব্যবস্থার প্রবর্তক বেগম খালেদা জিয়ার সরকার র‌্যাব গঠন করে বাংলাদেশের এক কমিউনিস্ট বামপন্থী পন্ডিত মোফাক্কর চৌধুরীকে ক্রসফায়ার দেয়।

শতশত বাম কমিউনিস্ট কর্মীদের এই যাবত ক্রসফায়ার দেয়া হয়েছে। গত ১৫ বছর যাবৎ পুলিশ র‌্যাব লাগাতার ভাবে ক্রসফায়ার নাটক করে বেড়াচ্ছে। কিছু পুলিশ ও র‌্যাব সদস্য টাকা কামানোর হাতিয়ার হিসেবে ক্রসফায়ারের ব্যবহার করছে।

২০১৮ সালে ২৬মে টেকনাফের ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাবেক যুবলীগ নেতা একরামুল হককে হত্যার পরও ক্রসফায়ার বলে চালিয়ে দেয়া হয় এবং মিথ্যা প্রেসনোট প্রদান করা হয়। গত ১৫ বছরে ৩ হাজারের বেশি মানুষকে ক্রসফায়ারে বিচার বহির্ভূত ভাবে হত্যা করা হয়েছে।”

তাঁরা বলেন, “২০১৮ সালে পুলিশ-র‌্যাব মিলে ৪২১ জন মানুষকে ক্রসফায়ারে হত্যা করেছে। ২০১৯ সালে পুলিশ-র‌্যাব মিলে ৩৬৭ জন মানুষকে ক্রসফায়ারের নামে বিনা বিচারে হত্যা করেছে। চলতি বছর ২০২০ সালে এ যাবৎ পর্যন্ত পুলিশ-র‌্যাব মিলে ২৮৫ জন মানুষকে ক্রসফায়ার দেয়া হয়েছে।

কোন কোন সময় ক্রসফায়ারে নিহত পরিবারের পক্ষ থেকে উচ্চ আদালতে রীট পিটিশন দায়ের করে। রাষ্ট্রপক্ষ এই রীটের আরগুমেন্ট করতে দিচ্ছে না। যেসব কোর্টে এই মামলা থাকে সেই কোর্টে প্রধান বিচারপতি বেঞ্চ ভেঙ্গে দিয়ে আইনী লড়াই থেকে বিচারপ্রার্থীদের বঞ্চিত করছে।”

বক্তারা আরো বলেন, “বর্তমান শেখ হাসিনার সরকার মুখে আইনের শাসনের কথা বললে বাস্তবে র‌্যাব-পুলিশ দিয়ে বিনা বিচারে মানুষ হত্যা করছে। এখনই সময় বিচারহীনতার এ সংস্কৃতি থেকে বেড়িয়ে আসতে হবে এবং প্রতিটি বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ডের জন্য আলাদা বিচার বিভাগী কমিটি গঠন করে দোষীদের বিচারের আওতায় আনতে হবে।

পুলিশের মধ্যে শুদ্ধি অভিযান চালিয়ে অসৎ পুলিশ সদস্যদের পদচ্যুত করে সৎ পুলিশ সদস্য নিয়োগ দান করতে হবে।”

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

twenty − five =