অপ্রদর্শিত অর্থ শিল্প-আবাসনে বিনিয়োগের সুযোগ আসছে

0
104

রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-রিহ্যাব সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিন কাজকে উক্ত বিষয়ে ধন্যবাদ জানান বাংলাদেশ রিয়েল এস্টেট ট্রেনিং ইনষ্টিটিউটের ফাউন্ডার মো: সাদী উজ জামান ব্যবস্থাপনা পরিচালক, নতুনধরা এসেটস লি:

এজাজ রহমান: গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের আসছে বাজেটে উৎপাদনশীল শিল্প ও আবাসন খাতে কোনো ধরনের জরিমানা ছাড়াই অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ প্রসারিত করা হচ্ছে। বাজেট প্রস্তাব প্রণয়নে জড়িত রাজস্ব কর্মকর্তারা জানিয়েছেন-মহামারী করোনাভাইরাসের আঘাত ঘোচাতে বিনিয়োগ বাড়িয়ে অর্থনীতি চাঙ্গা করতে চায় সরকার। এই লক্ষ্যে স¤প্রসারণ করা হচ্ছে বৈধভাবে অর্জিত অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ। ফলে আগামী ২ থেকে ৫ বছর অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ থাকতে পারে আসছে বাজেটে। এই অর্থের উৎস নিয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো কোনো প্রশ্ন করবে না, এমন আভাস ও পাওয়া গেছে। আগামী ২০২০-২১ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ প্রসারিত করার উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন ব্যবসায়ী ও রাজস্ব বিশ্লেষকরা। তারা বলেছেন-আসছে বাজেট বৈধভাবে অর্জিত অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগে করোনার আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানোর সহায়ক হবে। অর্থ পাচার কমবে। বাড়বে মানুষের কর্মসংস্থান। এজন্য উৎপাদনশীল খাতে ওই অর্থের বিনিয়োগ নিশ্চিত করার নির্দেশনাও বাজেটে থাকতে হবে। বাজেট প্রণয়নের সঙ্গে জড়িত জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এনবিআরের একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন-যে কেউ অপ্রদর্শিত আয়ের ঘোষণা দিয়ে যে কোনো অঙ্কের অর্থ বৈধ করতে পারবেন। ‘ভলান্টারি ডিসক্লো’র অব ইনকাম’ নামে পরিচিত এই নিয়মটি ২০১২-১৩ অর্থবছরে প্রবর্তন করা হয়। এ সুযোগ নিতে হলে প্রযোজ্য করহার ও তার সঙ্গে ১০ শতাংশ জরিমানা দিতে হয়। আসছে বাজেটে এই জরিমানা তুলে দেওয়ার প্রস্তাব আসতে পারে। ফলে জরিমানা ছাড়াই শুধু ১০ শতাংশ হারে কর দিয়ে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের প্রস্তাব থাকতে পারে আসছে বাজেটে। এ ক্ষেত্রে কোনো প্রশ্ন করবে না এনবিআরসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো। এমন একটি নির্দেশনা নীতি-নির্ধারকদের কাছ থেকে এসেছে। তার আলোকেই বাজেটে প্রস্তাব তৈরির প্রক্রিয়া চলছে। আগামী ২ থেকে ৫ বছর এই সুযোগ দিয়ে বৈধভাবে অর্জিত অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুবিধা দিতে চায় সরকার। এ সুযোগ দেওয়া হলে অপ্রদর্শিত অর্থ অর্থনীতির মূল স্রোতে আসবে এবং বিনিয়োগ বাড়বে। অর্থনীতিও চাঙ্গা হবে বলে মনে করছে সরকার।

এনবিআর সূত্র বলেছে, করোনাভাইরাসের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতির চাকা সচল করতে ও মানুষের কর্মসংস্থানের নিরাপত্তায় প্রয়োজন বিপুল পরিমাণে বিনিয়োগ। মূলত এই বিনিয়োগ চাঙ্গা করতে বৈধভাবে অর্জিত অপ্রদর্শিত অর্থ বৈধ করার সুযোগ স¤প্রসারণের উদ্যোগ নিতে চায় সরকার। জানা গেছে, বর্তমানে শিল্প ও ফ্ল্যাট ক্রয়ের ক্ষেত্রে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ রয়েছে।

এ ছাড়া নির্ধারিত বা প্রযোজ্য হারের সঙ্গে অতিরিক্ত কর দিয়ে ওই অর্থ বিনিয়োগ করা যাচ্ছে। সব মিলিয়ে বর্তমানে তিনটি উপায়ে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুবিধা রয়েছে। এর মধ্যে অর্থনৈতিক অঞ্চল ও হাইটেক পার্কে শিল্প স্থাপনে অপ্রদর্শিত আয় থেকে বিনিয়োগ করা অর্থের ওপর ১০ শতাংশ হারে কর দিলে ওই বিনিয়োগে অর্থের উৎস সম্পর্কে আয়কর প্রশাসন প্রশ্ন করবে না।

আগামী ২০২৪ সাল পর্যন্ত এ সুযোগ দিয়ে রেখেছে সরকার। আবাসন খাতে ফ্ল্যাটে অপ্রদর্শিত অর্থের বিনিয়োগ সম্পর্কে বলা হয়েছে-ফ্ল্যাটের আয়তনের ওপর এলাকাভেদে নির্দিষ্ট পরিমাণ কর দিলে কোনো প্রশ্ন করা হয় না। এই সুযোগটি আগে থেকেই আছে। কিন্তু মাত্রাতিরিক্ত কর নির্ধারণ করায় এর সুফল পাওয়া যায় না। যে কারণে চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরে করহার আগের চেয়ে গড়ে ২০ থেকে ৩০ শতাংশ কমানো হয়।

সূত্র বলেছে, উচ্চহারে কর আরোপ করার কারণে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগে এত দিন তেমন সাড়া মিলছিল না। সেজন্য শর্ত শিথিল করে জরিমানা ছাড়াই কর দিয়ে টাকা বৈধ করার নির্দেশনা আসতে পারে নতুন বাজেটে। এ প্রসঙ্গে এনবি আরের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আবদুল মজিদ বলেন- আবশ্যকতার নিরিখেই নৈতিকভাবে এসব অপ্রদর্শিত আয় করের আওতায় আনা জরুরি।

কেন তা আনা যায়নি বা যাচ্ছে না, বাধা পদ্ধতির, না প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির, এর একটা সংস্কার অনিবার্য হয়ে উঠেছে করোনাকালের এই বাজেটে। অর্থনৈতিক মন্দা মোকাবিলায় দুর্যোগে আপাতত অর্থনীতি পুনরুদ্ধারকল্পে এই দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণের বহু দৃষ্টান্ত রয়েছে। এনবিআরের আয়কর নীতির সাবেক জ্যেষ্ঠ সদস্য ড. সৈয়দ আমিনুল করিম বলেন-ক্ষতি পুষিয়ে উঠতেই অনেক সময় লাগবে। রাজস্ব আয়ও কমবে।

সরকারকে খরচ মেটানোর জন্য যে অর্থের প্রয়োজন হবে তার বড় উৎস হতে পারে অপ্রদর্শিত আয়। এই অর্থ বিনা প্রশ্নে এখন অর্থনীতির মূলধারায় নিয়ে আসা প্রয়োজন। প্রতিটি দেশই তাদের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সম্ভব সব পদক্ষেপ নেবে। আগে টিকে থাকতে হবে। এ টাকা বিনিয়োগে আনতে আইনে সংশোধনী আনতে হবে। বলতে হবে, অন্য আইনে যাই থাকুক, এই বিনিয়োগের অর্থের উৎস নিয়ে দুদক বা অন্য সংস্থা প্রশ্ন তুলতে পারবে না।

আবাসন উদ্যোক্তাদের সংগঠন রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-রিহ্যাব সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিন কাজল বলেন, এখন এমন এক পরিস্থিতি যখন অর্থনীতি রীতিমতো স্থবির। এ অবস্থা উত্তরণে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো অর্থনীতিতে টাকার প্রবাহ বাড়ানো। অলস অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগে আনতে হবে। এজন্য কোনো প্রশ্ন করা যাবে না। সরকারের কোনো সংস্থাও কোনো আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারবে না।

বিশেষ করছাড়ে আগামী পাঁচ বছরের জন্য এ সুযোগ দেওয়া হলে সরকারের ওপর চাপ কমবে। শিল্প-কারখানা, আবাসন, হাসপাতাল, টেক্সটাইল, গার্মেন্টসহ বিভিন্ন খাতে যেখানে বিপুলসংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ রয়েছে, সেখানে বিনিয়োগের অনুমোদন দেওয়া যেতে পারে। এখানে গুরুত্বপূর্ণ হলো, করছাড় এবং কোনো সংস্থার পক্ষ থেকে প্রশ্ন না করার বিধান থাকতে হবে। নইলে সুযোগ দিলেও তেমন কাজে আসবে না।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

15 − 10 =