শীতলক্ষ্যা নদী খননের নামে সিবিএ নেতা জাহাঙ্গীরের সেল্টারে মাটি বিক্রির অভিযোগ, হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা

0
357

সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টারঃ নারায়ণগঞ্জ শীতলক্ষ্যা নদীর পূর্বতীরে অবস্থিত বন্দর খেয়াঘাট সংলগ্ন নদী খননের নামে মাটি কেটে অবৈধভাবে বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অভিযোগ রয়েছে, বিআইডব্লিউটিএ সিবিএ নেতা জাহাঙ্গীর আলমের সেল্টারে মাটি বিক্রি করে টমার্স, ছাত্রদল নেতা জিএস জনি ও টুটুনের বিরুদ্ধে। তবে এভাবে নদী খননের নামে মাটি বিক্রি করায় সরকারের রাজস্ব হারানোর পাশাপাশি ব্যাক্তিগত লাভ হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, শীতলক্ষ্যা নদীর পাড়ে অল্প পরিমাণ নদী পাড় খনন করা হয়েছে। সেই খননের মাটি কেটে ট্রাকে তোলা হচ্ছে। মাটি বহনের জন্য প্রতিদিনই ৮/১০টি ট্রাক দাঁড়িয়ে আছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক করে একাধিক ব্যাক্তিরা জানান, নদী খননের মাটি যার প্রয়োজন সেই নিতে পারবে অথচ বিআইডব্লিউটিএ অসাধু কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে সিবিআই নেতা জাহাঙ্গীর আলম সরকারি মাটি বিক্রি করছে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে। আর এ মাটি বিক্রির সিন্ডিকেট রয়েছে টমার্স, ছাত্রদল নেতা জিএস জনি ও টুটুন। ট্রাক প্রতি মাটি বাবদ ১ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ১৪শ’ টাকা পর্যন্ত নিয়ে থাকে। যদি টাকা না দেই তাহলে মাটি আমাদের কাছে বিক্রি করবে না বলে জানান।

তারা আরও জানান, মাটির জন্য নিজেরা ব্যাক্তিগত ভাবে গাড়ি ভাড়া করলেও মাটি নেয়ার জন্য অতিরিক্ত ৭শ’ টাকা করে দিতে হয়। এ টাকা গুলো সিন্ডিকেট করে তুলেন টমার্স, জনি। প্রতিদিন প্রায় ১০০/১৫০ ট্রাক মাটি বিক্রি করে থাকে বন্দরে বিভিন্ন এলাকায়।

নাম প্রকাশে জনৈক ব্যাক্তি জানান, আমিও ১১৮ ট্রাক মাটি নিয়েছি। আমরা কাছ থেকে ট্রাক প্রতি গাড়ি ভাড়া ১৪শ’ টাকা করে নিয়েছে। এর মধ্যে ৯টি ট্রাক আমি ভাড়া করেছি সেখান থেকে ৭শ’ টাকা করে মাটি বাবদ নিয়েছে জনি।

একটি সূত্রে জানাযায়, বিআইডব্লিউটিএ অসাধু কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করেই নদী খননের মাটি বিক্রি করে যাচ্ছে। গাড়ির টিপ প্রতি ট্রাক ড্রাইবারকে ৫/৬শ’ টাকা করে দেয়া হয় অথচ মাটি বাবদ ১ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ১৪শ’ টাকা পর্যন্ত নেয়া হচ্ছে। নদী খননের মাটি বিআইডব্লিউটিএ ফ্রি করে দিলেও ১৪শ’ টাকা করে গাড়ি ভাড়া নেয়া হচ্ছে মাটি বাবদ, তাহলে বাকী টাকা গুলো কোথায় যাচ্ছে?।

এ ব্যাপারে টুটুন এর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সরকারের উপকার করতে গেছি, তারা মাটি বিক্রি করতে বলছে আর আমি টমাস এর নির্দেশে কাজ করেছি। এ কাজের টেন্ডার টমাস নিয়েছে তার কথাই আমি মাটি বিক্রি করেছি। বেশ কয়েকদিন যাবৎ আমি বাসায়, আমাকে মারধর করে আমার পা ভেঙে ফেলছে মাটি বিক্রি করি দেখে। আমি টমাসকেও খুঁজতেছি ওর জন্যই আমাকে মারধর করে পা ভেঙে ফেলছে।

এবিষয় টমাস এর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিআইডব্লিউটিএ মাটি ওপেন করে দিয়েছে। তেল খরচ, ভেকু চালায়, লোক খাটে তাদের একটা খরচ দিতে। সরকারি ভাবে নদী খনন করা হচ্ছে তাহলে তাদের কেন টাকা নিবে এর জবাবে তিনি এড়িয়ে গিয়ে বলেন এবিষয় সরকারি অফিসে গিয়ে খবর নেন।

এবিষয় কামাল উদ্দিন জনির সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিআইডব্লিউটিএ নদী খননের মাটি ফ্রি করে দিয়েছে। যার প্রয়োজন সেই মাটি নিয়ে যাচ্ছে গাড়ি ভাড়া দিয়ে। আমরা কোন মাটি বিক্রি করি না, মাটি যার লাগে তারা আমাকে বললে আমি শুধু লেবার দিয়ে মাটি গুলো গাড়ি থেকে নামিয়ে ফেলে দেই। আমরা কারও কাছ থেকে কোন টাকা নিচ্ছি না।

সিবিএ নেতা জাহাঙ্গীর আলমের সাথে শীতলক্ষ্যা নদীর পূর্বতীরে বন্দর খেয়াঘাট সংলগ্ন মাটি বিক্রি অভিযোগের বিষয় মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, নদী পাড় খননের মাটি অপসারণের কোন বাজেট নেই, ভেকুর ড্রাইবার ও আনসারদের কিছু খরচ দিয়ে যার মাটি প্রয়োজন সেই নিয়ে যাচ্ছে। তারা যদি ভেকুর ড্রাইবার ও আনসারদের খরচ দিয়ে মাটি বেশি বিক্রি করলে আমাদের কিছু করার নেই।

বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের যুগ্ম পরিচালক শেখ মাসুদ কামালের সাথে নদী খননের বাজেট, মাটি অপসারণ বাজেটসহ মাটি বিক্রির অভিযোগের বিষয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান আমি একটি বড় কাজের মধ্যে আছি, আগামীকাল অফিসে আইসেন কথা বলবোনে।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

eighteen + five =