কিশোরগঞ্জে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী দিবস পালিত

0
810

মোঃ আজিজুল হক তালুকদার কিশোরগঞ্জ : “মাদকদ্রব্য সম্পর্কে তথ্য ভাগ কর এবং জীবন বাঁচা” এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী দিবস উদযাপন উপলক্ষে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কিশোরগঞ্জে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (২৬ জুন) সকাল ১০ ঘটিকা দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে কিশোরগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ অফিসের সামনে থেকে একটি র‌্যালি বের করা হয়। সংগঠনের সভাপতি : মোঃ আজিজুল হক তালুকদারের সভাপতিত্বে এবং সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক: মোঃ জহিরুল ইসলাম জুয়েলের সঞ্চালনায় আজকের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথিঃ মোহাম্মদ শামীম আলম, জেলা প্রশাসক, কিশোরগঞ্জ। বিশেষ অতিথিঃ মোঃ মাশরুকুর রহমান খালেদ, বিপিএম (বার) পুলিশ সুপার কিশোরগঞ্জ। জাতীয় ভেজাল প্রতিরোধ ফাউন্ডেশন কিশোরগঞ্জ জেলা কমিটির আয়োজনে র‌্যালি শেষে জেলা প্রশাসক কার্যলয়ের সামনে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি : মোহাম্মদ শামীম আলম বলেন, মাদকাসক্তিমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। কারণ একজন মাদকাসক্ত; একটি সমাজ ধংসের জন্য যথেষ্ট। তিনি বলেন, পরিবার সচেতন হলেই মাদকাসক্ত দূর করা সম্ভব। তাই মাদক নিয়ন্ত্রণ করতে হলে সর্বাগ্রে পরিবারকেই এগিয়ে আসতে হবে।

এসময় অবস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহ-সভাপতি মোঃ কপিল উদ্দিন, মোঃ আজিজ মেম্বার, মোঃ মুখছেদুল মমিন সবুজ, শেফালী ইসলাম, মোঃ সজিব মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক:মোঃ আঃ রহমান রাজীব, মোঃ আবু রায়হান, মোঃ কাঞ্চন মিয়া, কবির হোসেন আকন্দ, মোঃ আক্তার হোসেন, মোঃ হাবিবুল্লাহ, আল- আমিন, আবু নাছের, ইমরান মিয়া, ইমাম হোসেন, মাহবুব, খাইরুল, মোঃ আলমগীর হোসেন (তালুকদার) প্রমুখ।

এছাড়া কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনের নেতারাও উপস্থিত ছিলেন। সমাপনী বক্তব্যে সংগঠনের সভাপতি: মোঃ আজিজুল হক (তালুকদার) বলেন, “দুর্নীতি মুক্ত দেশ আমাদের স্বপ্ন” জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ ১৯৮৭ সালের ৪২তম অধিবেশনে পৃথিবীকে মাদকের ভয়াবহ প্রভাব থেকে রক্ষা করার জন্যে ২৬ জুন এই দিবস ঘোষণা করা হয়। মাদকের ভয়াল ছোবলে বাংলাদেশের বিপুল সংখ্যক তরুণ সমাজ আজ বিপদগামী ও ধ্বংসের পথে।

বর্তমান সরকারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সারাদেশে মাদক বিরোধী জিরো টলারেন্স নিয়ে অভিযান চালাচ্ছে। র‌্যাব, পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। মাদকদব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বন্ধে সরকারের পাশাপাশি সকলকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।

মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। মাদকের কুফল সম্পর্কে নতুন প্রজন্মকে জানাতে হবে। মাদকাসক্তির কারণে দেশের যুবসমাজ তথা যুবশক্তি দ্রুত ধ্বংসের পথে এগিয়ে চলছে। মাদকদ্রব্য মৃত্যু ও ধ্বংস ডেকে আনে।

মানুষের দৈহিক সুস্থতা, নৈতিকতা ধ্বংস করে যুব সমাজকে অধঃপতনের মুখ ঠেলে দিচ্ছে। মাদক একটি সামাজিক সমস্যা। তাই সামাজিকভাবে এর বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতে হবে। শিক্ষক, সাংবাদিক, সাহিত্যিক, ডাক্তার, আইনজীবি, ব্যবসায়ী, ছাত্র সবাই এই সমাজের বাসিন্দা।

প্রত্যেকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে মাদকের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতে হবে। এই ক্ষেত্রে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় মাদক দ্রব্যের ব্যবহার নির্মূল করার জন্যে আসুন দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হই।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

sixteen + eighteen =