কথিত জাগরনী টিভির প্রতারণার শেষ কোথায়?

0
272

স্টাফ রিপোর্টার: নিয়মনীতিহীন আইপি টিভির বিরুদ্ধে অচিরেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও স¤প্রচারমন্ত্রী  হাছান মাহমুদ। তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা জানানো হয়। তথ্য ও স¤প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, ‘কিছু আইপি টিভি অনেক সময় গুজব রটানোতে যুক্ত হয়, অসত্য তথ্য পরিবেশন ও ভাঁড়ামোতে লিপ্ত হয়। আবার দেখা যায়, অনুমোদন পাওয়ার আগেই কেউ কেউ টেলিভিশন চ্যানেলের মতো অফিস খুলে বসেছে, জেলা-উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছে। এসব বিষয়কে একটা নিয়মনীতির মধ্যে আনা প্রয়োজন।’

অনুমোদনবিহীন টিভি চ্যানেল জাগরনী টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহিন আলম স্বপন ও পরিচালক ফাতেমা আক্তারের জাগরনী মাল্টিমিডিয়া লি: ঠিকানা: ৩৮৩, রাজ্জাক প্লাজা (১৫তলা), মগ বাজার চৌরাস্তা, থানা হাতিরঝিল। তথ্য মন্ত্রনালয়ের সীল স্বাক্ষরসহ ভুয়া কাগজ সৃজন করে দেখায় যে জাগরনী টিভি একটি স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল।

চ্যানেলের সরকারী অনুমোদনের বৈধ কাগজপত্র এক সেট চাইলে পরিচালক শাহিন আলম স্বপন ও ফাতেমা আক্তার কালক্ষেপন করে থাকে।

গত-২৭/০৮/২০১৯ইং চাঁনমিয়া নামের এক ব্যাক্তির কাছ থেকে চার কোটি টাকার চেকের মাধ্যমে নগদ টাকা উত্তোলন করেন ও ছয় কোটি টাকার সমপরিমান ছয়টি চেক আমানত হিসাবে নিয়ে ছিলেন স্বপন ও পরিচালক ফাতেমা আক্তার।

তাছাড়া ০১/০৩/২১ইং তারিখে তার প্যাডে ও নন জুডিশিয় স্ট্যাম্প আরো একটি চুক্তি সম্পাদিত হয় যার রেফারেন্স অনুযায়ী প্রাপ্তিও প্রদান স্বীকারপত্র রয়েছে। চেক নং-৯১৯৪৮৬, অন্য তারিখ বিহীন চেক নং-৯১৯১৪৯৩, ৯১৯১৪৯৬, ৯৯৬০০২৪, ৯৯৬০০২৬, আমানত হিসাবে প্রদান করে থাকি  জাগরনী টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক  শাহিন আলম স্বপনের নিকট।

এ বিষয়ে চাঁনমিয়া বলেন, প্রতারক স্বপন আমার নিকট আরো টাকা দাবী করে  বলেন, যে তথ্য মন্ত্রনালয়ে টাকা দিতে হবে। তা না দিলে প্রতারক স্বপন আমাকে এ সকল চেক ডিজঅনার করে মামলার হুমকি দিয়ে থাকে।

যার ফলে আমার সন্দেহ হওয়ার কারনে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে এই টিভি চ্যানেলের কোন বৈধ অনুমোদন আছে কিনা তা জানা নেই। সচিবালয়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায় যে,  জাগরনী টিভির সরকার কর্তৃক কোন বৈধ অনুমোদন নেই। এ ধরনের প্রতারক চক্র সহজ সরল মানুষের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হতিয়ে নিয়েছে। নিয়োগ বানিজ্যসহ বিভিন্ন ভাবে প্রতারণার মাধ্যমেও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে  জাগরনী টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক  শাহিন আলম স্বপনের বিরুদ্ধে। উক্ত চুক্তি নামায় আমাকে তার প্রতিষ্ঠানের ১৫০০০ শেয়ার দিবে বলে আমি তার সাথে এক কোটি টাকা প্রদান করে চুক্তি করি। তার পর শুরু হয় নানা নাটকীয়তা, টালবাহনা। অফিসের উন্নয়নের বিভিন্ন অযুহাত দিয়ে আরো টাকা হাতিয়ে নেন।

গত-২৭/০৮/২০১৯ইং তারিখে এক কোটি টাকা পরিশোধ করিবার পর কথিত জাগরনী  টিভি চ্যানেল প্রচার ও সম্প্রসারনের এবং সরকার কর্তৃক সকল বৈধ কাগজ পত্র চাইলে প্রতারক শাহিন আলম স্বপন ও পরিচালক ফাতেমা আক্তার আরো দুই কোটি টাকা দিতে হবে, না হলে টিভির বৈধ লাইন্সের সকল কাগজ দেখা যাবে না।

গত-০৪/০৬/২১ইং জাগরনী টিভি চেয়ারম্যান আমাকে ও আমার সপরিবার হত্যা করার জন্য স্থানীয় ভাড়াটে সন্ত্রাসী নিয়ে আমার দিলুরোডের অফিসে এসে হুমকি প্রদান করেন। আমার জীবনের নিরাপত্তার জন্য হাতিরঝিল থানায় হাজির হয়ে একটি সাধারণ ডায়রী করি যার নং-১৫৯। এতে ক্ষ্যান্ত হয়নি স্বপন ও ফাতেমা সিন্ডিকেট। আমাকে নানা রকম হয়রানী করে যাচ্ছে। জাগরনী টিভির চেয়ারম্যান   শাহিন আলম স্বপন ও ফাতেমা আক্তার গং দের মত প্রতারকরা  এখনো রয়ে গেছে এদেরকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হউক। প্রতারক শাহিন কখনো রাজনৈতিক দলের নেতা কর্মীদের নাম ভাঙিয়ে মানুষকে হুমকি প্রদান করেন। তার প্রতারণার শিকার মফস্বলের প্রতিনিধিরাও।

অসাধু ক্যাবল অপারেটরদের সাথে যোগসাজশে এমন নিত্য নতুন কৌশল অবলম্বন করেন শাহিন ফাতেমা সিন্ডিকেট। কথিত জাগরনী টিভির বিরুদ্ধে তথ্য মন্ত্রীর কাছে একটি  অভিযোগ করেন চাঁনমিয়া।

এ বিষয়ে ডিবি কমিশনার অপরাধ বিচিত্রাকে বলেন, আইপি টিভি খুলে যারা প্রতারণা করে যাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

এ বিষয়ে কথিত জাগরনী টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহিন আলম স্বপন মুঠোফোনে অপরাধ বিচিত্রাকে বলেন, ভাই আপনি অফিসে আসেন তাহলে কথা বলবো।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

twenty + thirteen =