এক তরফা নির্বাচন কমিশন আইন করার প্রতিবাদ

0
185

সভায় সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক কমরেড হারুন চৌধুরী বলেন, ৩০ লক্ষ শহীদ ও ২ লক্ষ নারীর সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশ স্বাধীন হয়। ১৯৭২ সসালে সংবিধানে বলা আছে ১১৮ (১) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন আইন দ্বারা স্বাধীন হবে। আজ শেখ হাসিনার সরকার যে আইন প্রণয়ন করে এই আইন অগতান্ত্রিক এক দলীয় আইন হিসাবে গড়ে উঠল। আওয়ামী লীগ সরকার দায় মুক্তি অধ্যাদেশ জারির মহা ওস্তাদ। ১৯৭৫ সালে খন্দকার মোশতাক আহমেদ ১৯৭৩ সালের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও মন্ত্রী পরিষদের সদস্যদের নিয়ে প্রথম দায়মুক্তি অধ্যাদেশ জারি করে। শেখ হাসিনার সরকার কুইক রেন্টাল বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য নিমার্ণকারী প্রতিষ্ঠানের মালিকদের দায় মুক্তি দেয়া হয়। বর্তমান শেখ হাসিনার সরকার ২০১৯ সালে গঠিত নির্বাচন কমিশন দায়মুক্তি দিয়ে আইন প্রণয়ন করে।

সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সামছুল আলম বলেন, বর্তমানে সরকার যে আইন করছে এই আইন দিয়ে কোন দিন দেশে স্বাধীন নির্বাচন কমিশন গঠিত হবে। নির্বাচন কমিশন কে নির্বাহী ক্ষমতা থেকে মুক্তি দিয়ে নতুন করে সংবিধানের মধ্য দিয়ে আইন প্রণয়ন করতে হবে।

সোস্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (ঝউচ)’র আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ বলেন, এই নির্বাচন কমিশন গঠনের কোন আইন হয়নি, এটি আওয়ামী এবং মুজিব কোর্ট পরিহিত একটি কমিটি করা হয়েছে। কারণ অনুসন্ধানে কমিটিতে প্রধান বিচারপতি এক জনের নাম প্রস্তাব করবেন, এখানে দেখা যায় বিচারপতি রাজনৈতিক বিবেচনায় নিয়োগপ্রাপ্ত হয়। মহা হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক, সরকারি কর্ম কমিশনের চেয়ারম্যান উভয়েই রাজনৈতিক বিবেচনায় নিয়োগ হয়। সংবিধানের ৪৮(৩) অনুচ্ছেদে স্পষ্ট উল্লেখ আচে মহামান রাষ্ট্রপতি একমাত্র প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ ব্যতিত সকল কার্যক্রম প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শক্রমে করবেন সেক্ষেত্রে সেটাও প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শক্রমে হবে। অতএব আমি মনে করি এই আইন নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য আইন করা হয়নি। এটি আওয়ামী এবং মুজিব কোর্ট পরিহিত কয়েকজন লোকের একটি কমিটি করা হয়েছে।

সভার সভাপতি গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য’র সমন্বয়ক ও প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দল (পিডিপি)’র ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হারুন আল রশীদ খান বলেন, এই আইনের মাধ্যমে যে নির্বাচন কমিশন গঠিত হবে সেটি আওয়ামী ষড়যন্ত্রের আতুরঘরে পরিণত হবে। আমরা গণতান্ত্রিক বাম ঐক্যের পক্ষ থেকে অবিলম্বে এ আইন প্রত্যাহার করে নতুন গণতান্ত্রিক আইন প্রণয়নের দাবি জানাই। আগামী ২৯ জানুয়ারি শনিবার সকাল ১০:৩০ মিনিটে পুরানা পল্টন মোড়ে এই আইন প্রণয়নের প্রতিবাদে গণতান্ত্রিক বাম ঐক্যের উদ্যোগে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

16 + seven =