রংপুরে জাল টাকার ব্যবসায় ‍পুলিশ জরিত , পুলিশ কমিশনারের কাছে লিখিত অভিযোগ

0
203

লিখিত অভিযোগে জানা যায়, এএসআই আল আমিন দীর্ঘদিন ধরে জাল টাকার ব্যবসা করে আসছিলেন। এর মধ্যে তার সঙ্গে পরিচয় হয় অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য তরিকুল ইসলামের ছেলে নগরীর পশ্চিম মুলাটোল মহল্লার বাসিন্দা সোহান ও তার বন্ধু নিউ ইঞ্জিনিয়ার পাড়ার ব্যবসায়ী হাজি রবিউল ইসলামের ছেলে জিসানের। গত বছরের ৫ জুলাই ওই পুলিশ কর্মকর্তা মোবাইল ফোনে সোহান ও জিসানকে নগরীর সোডাপীর এলাকায় একটি হোটেলে ডাকেন। সেখানে আলোচনার একপর্যায়ে আল আমিন তার পকেট থেকে ৫০০ টাকার দুইটি বান্ডিল বের করে তাদের জানান, তার কাছে জাল টাকা আছে। এসব টাকা চালাতে পারলে অর্ধেক তাদের দেওয়া হবে।

এতে দুই বন্ধু সম্মত না হলে অনেকটা জোর করেই পাঁচটি নোট তাদের হাতে দিয়ে বলেন প্রাথমিকভাবে এগুলো চালাও। বাধ্য হয়ে তারা নোটগুলো নিয়ে মিঠাপুকুরে যান  সেখান থেকে মোটরসাইকেলে ফেরার পথে দমদমা ব্রিজের কাছে পুলিশের চেকপোস্টে তল্লাশির সময় তারা নোটগুলোসহ ধরা পড়েন। এরপর তাদেরকে আটক করে তাজহাট থানা পুলিশ হাজতে নিয়ে আসে। সেখানে জিজ্ঞাসাবাদে তারা ঘটনা খুলে বলেন। মোবাইল ফোনে থানার পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে আল আমিনের কথাও বলিয়ে দেন। পুরো বিষয়টি তাজহাট থানা পুলিশ জানার পরও আল আমিনের নাম না দিয়ে তাজহাট থানার এসআই আশাদুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করেন। মামলায় সোহান ও জিসানকে আসামি করা হয়। পরে ওই দুই বন্ধু ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে জবানবন্দিতেও বিষয়টি খুলে বলেন।

ঘটনা তদন্ত করে সুবিচারের দাবিতে রংপুর মেট্রোপলিটান পুলিশ কমিশনারের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য তরিকুল ইসলাম

জাল টাকার ব্যবসার অভিযোগে বিশেষ ক্ষমতা আইনে করা মামলায় রংপুর মেট্রোপলিটান পুলিশের ট্রাফিক শাখায় কর্মরত এএসআই মো. আল আমিনকে প্রধান আসামি করে আদালতে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। মামলার দীর্ঘ ৯ মাস পর মঙ্গলবার বিকেলে এই চার্জশিট দেওয়া হয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, দীর্ঘ ৯ মাসেও তাকে গ্রেফতার করা হয়নি। তবে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হলেও তিনি বহাল তবিয়তে চাকরিতে রয়েছেন। এ বিষয়ে কোনও পুলিশ কর্মকর্তাই মন্তব্য করতে রাজি হননি।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

10 − 8 =