এসডিজি বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখতে পারে সিএসআর কার্যক্রম

0
1498

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) পূরণে বেসরকারি খাতের সিএসআর (সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচী) কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে। তবে এজন্য সিএসআর নীতিমালা দ্রুত প্রণয়ন করা দরকার। গতকাল ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) এবং এস আর এশিয়া বাংলাদেশের যৌথভাবে আয়োজিত “বাংলাদেশে কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানসমূহে সামাজিক দায়বদ্ধতা কার্যক্রম জোরদার” বিষয়ক সেমিনারে বক্তারা এসব কথা বলেন। ডিসিসিআই অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত এ সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, এমপি। ডিসিসিআই সভাপতি আবুল কাসেম খানের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন এস আর এশিয়া বাংলাদেশ-এর কান্ট্রি ডিরেক্টর সুমাইয়া রশিদ এবং ডিসিসিআইয়ের ঊর্ধ্বতন সহ-সভাপতি কামরুল ইসলামসহ আরও অনেকে।

Advertisement

এম এ মান্নান, এমপি বলেন, বাংলাদেশে অনেক আগে থেকেই সিএসআর কার্যক্রম চালু রয়েছে এবং সমাজে বিভিন্নভাবে সিএসআর কার্যক্রম চালু আছে। তবে সমাজে এর কার্যকর ভূমিকা নিশ্চিত করতে একটি সিএসআর নীতিমালা প্রণয়ন করা হবে। এজন্য অর্থমন্ত্রণালয় ইতোমেধ্যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, সংস্থা, বাণিজ্যিক সংগঠন ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে সুপারিশ গ্রহণ করেছে। সরকার এ সুপারিশের আলোকে সিএসআর নীতিমালা প্রণয়নে শিগগির একটি জাতীয় কাউন্সিল গঠন করবে। অর্থ প্রতিমন্ত্রী আরোও বলেন, এসডিজি’র লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য সরকারের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট সকল স্টেকহোল্ডারদের কার্যকর অংশগ্রহণ একান্ত অপরিহার্য। এক্ষেত্রে বেসরকারি খাত তাদের সিএসআর কার্যক্রমের মাধ্যমে এসডিজি বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখতে পারে।

আবুল কাসেম খান বলেন, বাংলাদেশে সামাজিক দায়বদ্ধতার কার্যক্রম দীর্ঘদিন ধরে থাকলেও তা প্রাতিষ্ঠানিক রূপ লাভ করেনি। তিনি বলেন, এসডিজিতে উল্লেখিত দারিদ্র্য বিমোচন, ক্ষুধা নিবারণ, কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ উন্নয়ন এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ধারাকে বেগবান করার লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়নে সিএসআর কার্যক্রম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। সুমাইয়া রশিদ বলেন, সিএসআর নীতিমালা প্রণয়ন হলে দেশের কর্পোরেট সংস্থাগুলোতে সিএসআর কার্যক্রম আরোও সক্রিয়ভাবে কার্যকর করা যাবে। তিনি জানান, এশিয়া অঞ্চলের বিভিন্ন দেশে ইতোমধ্যে সিএসআর নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে এবং তা একটি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ লাভ করেছে। তিনি আরোও বলেন, সিএসআর কার্যক্রমের টেকসই উন্নয়ন ও তার প্রভাব পর্যালোচনার জন্য সকলকে আরোও মনোযোগী হতে হবে। সেমিনারে নিবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এএসএম আমানউল্লাহ। তিনি বলেন, দেশের কর্পোরট সংস্থাগুলো সিএসআর কার্যক্রমের পরিধি বাড়ালে এর প্রভাব স্বাস্থ্য, শিক্ষা, নারীর ক্ষমতায়ন এবং জ্বালানি খাতের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

 

Advertisement

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here