শিক্ষা ধ্বংসে বাহারি বিজ্ঞাপনের হিড়িক কোচিং প্রচারণায়

0
955

 শিক্ষার্থীদের আকৃষ্ট করতে নানা কৌশলে বিজ্ঞাপনের ভাষা সাজিয়ে বাজার সয়লাব করেছে কোচিং সেন্টার এবং পাবলিকেশন্সগুলো। শিক্ষা বিষয়ে এসব অতিরঞ্জিত বিজ্ঞাপনের নেই কোন নীতিমালা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এসব বিজ্ঞাপন প্রতারণার বড় ফাঁদ। রং-বেরংয়ের বিভিন্ন পোস্টার, ব্যনারের পাশাপাশি এখন ফেসবুকেও সয়লাব এসব বিজ্ঞাপন। থাকছে অতি লোভনীয় সব অফার। ভার্সিটিতে ভর্তি সুযোগের পাশাপাশি মাত্র ছয়-সাত দিনে আইইএলটিএসএ’তে ভালো স্কোর করার শতভাগ নিশ্চয়তা। উত্তরায় বৃটিশ আমেরিকান রিসোর্স নামে একটি কোচিং সেন্টারের পরিচালক দাবি করছেন, মাত্র সাত দিনে আইইএলটিএসএ ছয় স্কোর করা সম্ভব। তিনি বলেন, এটা শতভাগ সম্ভব। কোনো অতিরঞ্জিতকরণ নয়। এ ধরনের নিশ্চয়তা আমাদের আগে কেউ দেয়নি। এছাড়াও বিভিন্ন পাবলিকেশন্স এর গাইড বইয়ে থাকছে নানা ধরনের নিশ্চয়তার হিড়িক। তাদের গাইডবই পড়লে নাকি বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ পাওয়া নিশ্চিত হয়ে যায়! থাকছে প্রশ্ন কমনের শতভাগ গ্যারান্টি। গবেষকরা বলছেন, এধরনের বিজ্ঞাপন প্রতারণার পথ প্রশস্ত করছে। এগুলো নির্মূলে সুষ্ঠু মনিটরিং দরকার। শিক্ষা গবেষক অধ্যাপক ছিদ্দিকুর রহমান বলেন, মাত্র সাত দিনের প্রস্তুতিতে সবাইকে ছয় স্কোর বা তার উর্ধ্বে পাইয়ে দেয়া কোনোভাবেই সম্ভব না। এটা নির্ভর করবে শিক্ষার্থীর প্রস্তুতির উপর। এসব বিজ্ঞাপন হচ্ছে মানুষকে বিভ্রান্ত করে টাকা উপার্জন করার জন্যে। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলছেন, এসব কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এটা বন্ধ করার জন্যে যেমন আমাদেরকে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে, তেমনি একটা জনমত সৃষ্টি করে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করতে হবে।

Advertisement
Advertisement

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here