সন্তানের কাজটিই করলেন ডিসি আওয়াল

0
481

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ছেলে ও বউমার নির্যাতনে রক্তাক্ত তাসলেমা খাতুনকে (৯৮) যখন ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল কোলে করে অ্যাম্বুলেন্সে তুলছিলেন, সেই দৃশ্য দেখে এলাকাবাসী নীরব হয়ে তাকিয়ে ছিলেন।
সকাল ৭টার দিকে জেলা প্রশাসকের উপস্থিতি দেখে হরিপুর উপজেলার ডাঙ্গীপাড়া ইউনিয়নের ডাঙ্গীপাড়া গ্রামের মানুষ অবাক হন। এ সময় এলাকার একজন নারীকে বলতে শোনা যায়, ‘‘যে কাজ করা দরকার নিজের ছেলের, সেটা করলেন বড় স্যার (জেলা প্রশাসক)।’’
এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে বৃদ্ধা তাসলেমা খাতুন ভাত চাইলে ক্ষিপ্ত হন ৬০ বছর বয়সী ছেলে বদরউদ্দিন ও তার স্ত্রী। এক পর্যায়ে তাদের মারধরের শিকার হন তাসলেমা। এ সময় বাম চোখের নিচে জখম হন তিনি।
ঘটনাটি গণমাধ্যমে প্রচার ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে যাওয়ায় বৃদ্ধার প্রতি অনেকে সমবেদনা জানান। অনেকে ছেলের শাস্তিও দাবি করেন।
জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল গভীর রাত পর্যন্ত ঠাকুরগাঁওয়ের বানভাসী মানুষের  খোঁজখবর নিতে আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান করায় বিষয়টি দেরিতে তার দৃষ্টিগোচর হয়। এরপর বৃদ্ধাকে উদ্ধার করতে যাওয়ার বিষয়টি তিনি রাইজিংবিডির প্রতিনিধিকে জানান।
সকাল ৭টায় জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল, সাংবাদিক তানভীর হাসান তানু ও রবিউল এহসান রিপন হাজির হন ওই বৃদ্ধার বাড়িতে। জেলা প্রশাসকের উপস্থিতির খবর শুনে সেখানে হরিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, ডাঙ্গীপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ এলাকার গণ্যমাণ্য ব্যক্তিরা হাজির হন। সবার উপস্থিতিতে বৃদ্ধাকে অ্যাম্বুলেন্সে করে ঠাকুরগাঁওয়ের পথে রওয়ানা হন। দুপুর ১২টার দিকে তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
ডাঙ্গীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বলেন, রাতে সংবাদকর্মীদের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পেরেছেন। সকালে এসে দেখেন ডিসি মহোদয় বৃদ্ধাকে চিকিৎসার জন্য ঠাকুরগাঁওয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।
সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক পার্থ সারথী দাস জানান, বৃদ্ধার চোখের ক্ষত গুরুতর। তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তার সব চিকিৎসা ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতাল থেকে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন সিভিল সার্জন ডা. আবু মোহাম্মদ খায়রুল কবির।
ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল জানান, গভীর রাতে বৃদ্ধা মাকে মারধরের বিষয়টি জানতে পারেন, সেটি তাকে ব্যাথিত করে। তাই সকালে বৃদ্ধা মায়ের খোঁজে হরিপুরে যান। পরে স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে।

Advertisement
Advertisement

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here