সোনারগাঁয়ের মাটি আওয়ামীলীগের ঘাটি – কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ,বাংলাদেশ স্বাধীনতা চিকিৎস পরিষদ ডাঃ আবু জাফর চৌধুরী বিরু

0
1285

কামাল উদ্দিন ভূইয়া: দীর্ঘদিন রাজনীতি করছি এলাকার মানুয়ের জন্য । স্বাধীনতা দীর্ঘ  পথপরিক্রমায় বদলেগেছে আমাদের জাতীর জীবন।  আজ  বাংলাদেশ এগিয়ে চলছে । দারিদ্র্য কমছে তথ্য প্রযুক্তি উন্নতি ঘটছে , বারছে মানুষের জীবন যাত্রার মান । দেশের উন্নয়নের চাকা যে হারে এগিয়ে চলছে । তরুন সমাজ সেবক  বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যাক্তি , কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ,বাংলাদেশ স্বাধীনতা চিকিৎস পরিষদ ও সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা ডাঃ আবু জাফর চৌধুরী বিরু সোনারগাঁওকে চাঙ্গা করে তুলেছে ।  রাজপতের আপোসহীন সৈনিক, মেধাবী যুবক, ন্যায়বিচার আর জনসেবায় স্বাধীনতার চেতনা, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নের প্রতিজ্ঞা বুকে ধারণ করে সোনারগাঁয়ে গ্রামে থেকে শুরু করে  ইউনিয়ন সহ আওয়ামীলীগ ও বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনকে চাঙ্গা করে তুলেছেন। ঝাঁপিয়ে পড়েছেন রাজনীবির মাঠে। রাজনীতিতে নিজের যোগ্যতা ও সততা হিয়ে এলাকার সকল মামুষের প্রিয়মুখ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছেন। দলমত নির্বিশেষে ব্যক্তি ইমেজ সোনারগাঁয়ে  রাজনীতির পাল বদল করে দিয়েছেন ডাঃ আবু জাফর চৌধুরী বিরু । সোনারগাঁয়ে ঝিমিয়ে পড়া দুর্গম রাজনীতি ইতিমধ্যেই চাঙ্গা হয়ে উঠেছে জননেতা ডাঃ আবু জাফর চৌধুরী বিরু নিরলস বিজ্ঞ নেতৃত্বের ফলে। রাজনীতিতে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করাই জননেতা ডাঃ আবু জাফর চৌধুরী বিরু মূল লক্ষ্য নয়- তার লক্ষ্য  রাজনীতির মাধ্যমে দেশে ও জাতিকে বিশ^ায়নের অগ্রগতির সহযাত্রী করা। জননেতা ডাঃ আবু জাফর চৌধুরী বিরু নিজেকে খুব সন্তর্পণে গুুছিয়ে নিচ্ছেন আগামীর পথে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে রাজপথের পরীক্ষিত সাহসী ত্যাগী রাজনীতিবিদ জননেতা ডাঃ আবু জাফর চৌধুরী বিরু সিভিল বুলেটও আপোসকামী করতে পারে নি। সোনারগাঁয়ে এক প্রান্ত হতে অন্যপান্তরে  ঘুরে ঘুরে দেখছেন সংঘঠন কি সমস্যা। ডাঃ আবু জাফর চৌধুরী বিরু তিনি সৎ আদর্শ রাজনতি পছন্দ করেন।  তিনি প্রতিমূহতে গরীব দুখী মানুষের সেবা করে যাচ্ছেন। তিনি এলাকার ব্যপক উন্নয়নের কাজ করে যাচ্ছেন। ব্যাক্তিগত জীবনে অনেক সংগঠনের সঙ্গে সফল ভাবে কাজ করে পরিচিতি পেয়েছেন । বিভিন্ন মহলে অর্জন করেছেন ব্যাপক সুনাম । তিনি  সমাজ সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন। গরীব-দুঃখী ও অসহায় মানুষের সাহায্য সেবায় তার দানের হাত প্রসারিত দীর্ঘদিন থেকে। অনেক কন্যাদায়গ্রস্ত পিতা-মাতাকে সাহায্য-সহযোগিতা করেছেন। রোজা,ঈদে,পুঁজায় ধর্মীয় সম্প্রীতির প্রতিফলন ঘটে তার আর্থিক সহযোগীতায় দরিদ্র মানুষের মুখে হাঁসি ফুটে। মানব সেবাই বড় ধর্ম   এই কথাটি তার মুখে প্রায় বলতে শুনা যায়। মানুষের সেবা করতে হলে মানুষের কাছে যেতে হবে । তিনি দাঁপিয়ে বেড়াচ্ছেন প্রতিটি গ্রামের মানুয়ের ধারে ধারে । চিহিৃত করেছেন বিভিন্ন সমস্যা, সমাধানের প্রতিশ্র“তি দিয়ে নিজেকে উপস্থাপন করছেন স্থানীয় জনতার কাছে। তিনি আরো বলেন আমি যতদিন বাঁচি এলাকার মানুষের পাশে া থাকবো।

Advertisement
Advertisement

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here