জোর যার মুল্লুক তার কেরানীগঞ্জের মধ্যেরচরে আরশিনগর টুইন টাওয়ার জায়গার অংশীদার মো: সাহাদাত !

0
277

অপরাধ বিচিত্রা: বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের গৃহহীন জনগণকে গৃহ দান করে ব্যাপক চমকদান করেছেন বাংলাদেশের জনগণকে। অথচ একদল ভূমিদুস্য সাধারণ মানুষের ঘরবাড়ী কেড়ে নিয়ে গৃহহীন করে রাস্তায় ফেলে দিচ্ছে। কেরাণীগঞ্জ থানার মধ্যেরচরের আরশিনগর টুইন টাওয়ার নামে ১৬ তলা যে বিল্ডিং এর নির্মাণ কাজ চলছে সেই জায়গার আসল মালিক মো: সাহাদাত এখন জীবন বাঁচানোর জন্য ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। এই প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে মো: সাহাদাত জানায়-আমি বিগত ১০ বৎসর যাবত এই জায়গাটুকু রক্ষার জন্য অন্যান্য সকল সহায়-সম্পত্তি বিক্রয় করে জায়গাটুকু টিকিয়ে রাখার জন্য প্রাণপনে লড়াই করছি। আমার জায়গাটুকু দখল করার জন্য একের পর এক ভূমি দস্যুরা নানাভাবে চেষ্টা করে যাচ্ছে। ইতিপূর্বে আমাকে মেরে ফেলার জন্য কয়েকবার চেষ্টাও করেছে। আমার জায়গাটুকু দখলের জন্য পূর্বেও অন্য একটি প্রভাবশালী মহল পাঁয়তারা করেছিল। বর্তমানে অন্য একটি ভূমিদস্যুর দল জায়গাটি দখল করে তথায় আরশি নগর টুইন টাওয়ার নামক বিল্ডিং এর নির্মাণ কাজ শুরু করে দিয়েছে। তাদের সাথে আমি কোনভাবেই না পেরে আপনাদের শরণাপন্ন হয়েছি। আমার জমির কাগজপত্র সব ঠিক আছে।

আরশিনগর টুইন টাওয়ার নির্মাণাধীন ভবন

দয়াকরে আপনারা আমার জায়গাটি দখলমুক্ত করে ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করুন। রাতের আঁধারে ক্ষমতা দেখিয়ে ঐসকল ভূমিদস্যুরা আমার মালিকানাধীন জায়গায় বিল্ডিং নির্মাণ কাজ করছে।

তাদের মেরে ফেলার হুমকির কারণে আমি স্বাভাবিকভাবে কোন কাজই করতে পারছি না।

লোকমুখে শুনেছি যে, ৪৫ জন মিলে উক্ত টুইন টাওয়ার এর নির্মাণ কাজ করছে। সেখানে আমি একা হিসাবে ওদের বিরুদ্ধে আমার কি করার আছে? পূর্বে এই ভূমিদস্যুরা আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাকে বিনা কারণে জেলহাজত খাটায়।

আরশিনগর টুইন টাওয়ার নির্মাণাধীন ভবনের সাইনবোর্ড

বিজ্ঞ আদালতে আমি নির্দোষ প্রমাণিত হয়ে জেল হাজত থেকে বের হই। তারপরও এই ভূমি দস্যুরা আমাকে জায়গা অথবা জীবন রেখে চলে যেতে বলে।

তবে আমার শেষ রক্তবিন্দু থাকা পর্যন্ত আমি প্রাণপনে লড়াই করে যাব। অসহায় সাহাদাত এর এই সাহসী পদক্ষেপকে আমরাও সাধুবাদ জানাই। ঐ এলাকার বিভিন্ন পেশাজীবির মানুষ সাহাদাতের বক্তব্যের সাথে একমত পোষণ করেছেন।

আরশিনগর টুইন টাওয়ারের সাইনবোর্ডে যে ফোন নম্বর দেয়া আছে তা সবগুলোই বন্ধ পাওয়াতে তাদের কারো সাথেই যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে সাহাদাতের বক্তব্য ও কাগজপত্র সত্যতার অনুসন্ধান চলছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেখানে গৃহহীনদের গৃহ দান করছেন, সেখাবে ভূমি দস্যুরা যতই প্রভাবশালী হোক, সাহাদাত যদি প্রকৃতই আরশিনগরের টুইন টাওয়ারের মালিক হন তাহলে তারা কোনভাবেই তাকে ভূমিহীন করতে পারবে না।

আরশিনগরের টুইন টাওয়ারের মূল মালিকদের খোঁজ চালাচ্ছে অপরাধ বিচিত্রা। আগামী সংখ্যায় টুইন টাওয়ার জায়গার মালিক কে বা কাহারা তাহাদের পরিচয় প্রকাশ করবে অপরাধ বিচিত্রা। 

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

thirteen − 6 =