মালয়েশিয়া বিদেশি শ্রমিকের জনবল সংকট

0
121

এম এ আবির, মালয়েশিয়া প্রতিনিধি,  বর্তমানে জনবল সংকটে থাকা কিছু অর্থনৈতিক খাতে শূন্যপদ পূরণের জন্য সরকার বিদেশী কর্মী আনার চিন্তা করছিল এবং ঘোষণা ও করা হয়েছে তবে সেটা আশানুরূপ সাফল্য অর্জন করতে পারবেনা বলে মত দিচ্ছেন শ্রমিক সংকটে থাকা বড় বড় শিল্প প্রতিষ্ঠান গুলো।

শ্রমিক সংকট মোকাবিলায় গতকাল জরুরি বৈঠকে  ন্যাশনাল রিকভারি কাউন্সিলের (এনআরসি) চেয়ারম্যান বলেন, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পকে (এসএমই) তাদের কর্মশক্তির সঙ্গে লড়াই করা কিছু শিল্পে সহায়তা করার জন্য গৃহীত ব্যবস্থাগুলির মধ্যে ছিল  প্রাথমিকভাবে ৩২ হাজার বিদেশি শ্রমিক নিয়োগ।

বর্তমানে, শূন্যপদ পূরণের ক্ষেত্রে স্থানীয়দের ( মালয়েশিয়ান)  অগ্রাধিকার দেওয়ার জন্য চলতি  বছরের শেষ পর্যন্ত বিদেশী কর্মী নিয়োগ  স্থগিত করা হয়েছে।

এনআরসি চেয়ারম্যান বলেন, তিনি আজ কাউন্সিলের সভায় এসএমইদের সহায়তার ধরন নিয়ে আলোচনা করেছে, বিশেষ করে তারল্য এবং জনবলের অভাব বা বিশেষ করে বিদেশী কর্মীদের বিষয়ে। এনআরসি এসএমইদের মুখোমুখি আলোচনায় জনবল সংকট ও অনন্য  সমস্যা গুলি দেখার জন্য বেশ কয়েকটি মন্ত্রণালয় এবং সরকারী সংস্থাকে নিয়ে একটি বিশেষ টাস্কফোর্স গঠন হয়েছে।

বিদেশি শ্রমিকদের ক্ষেত্রে ব্যবসার কোন ধরনের সহায়তা প্রয়োজন, কোন সেক্টরে বেশি জনবল দরকার, আরও কতজন কর্মীর প্রয়োজন এবং কিভাবে এই সমস্যা সমাধান করা যায়। সেই বিষয়ে আলোচনা ও পর্যালোচনা হয়েছে গতকাল  বৈঠকে।

আমরা সংশ্লিষ্ট সেক্টরে খাপ খাওয়ানো বা কর্ম সংস্থানের জন্য স্থানীয়দের ( মালয়েশিয়ান)  প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এটি সমাধান করা যায় কিনা বা আমাদের আরও বিদেশী কর্মীদের প্রয়োজন হলে আমরা বিবেচনা করছি জরুরি ভিওিতে নিয়োগ করা যায় কিনা ।


তিনি আরো বলনে,  যদি বিদেশি শ্রমিক নিয়োগে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয় তাহলে বিদেশীদের মালয়েশিয়া  প্রবেশের আগে কিছু স্বাস্থ্য শর্ত পাস করতে হবে।যেখানে শ্রমিকের ঘাটতিতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত পাম ওয়েল বাগান বা কৃষি রূপায়ন  খাত।

স্পেশাল টাস্ক ফোর্সের বিষয়ে তিনি যোগ করেন যে, টাস্ক ফোর্স কে এক মাসের সময় দেওয়া হয়েছে, তাদের দায়িত্ব  এসএমই এর চাহিদা অনুসারে  তার রিপোর্ট তৈরি করা, সমস্যা গুলো চিহ্নিত করে পেশ করা।

এক প্রশ্নের জবাবে সাবেক প্রধানমন্ত্রী মহিউদ্দিন বলেন, মালয়েশিয়ার এসএমই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি দাতুক মাইকেল কং সম্প্রতি শিল্পের মুখোমুখি এবং চ্যালেঞ্জ সম্পর্কিত এনআরসি -র একটি বিশেষ রিপোর্ট  উপস্থাপন করেছিলেন।তিনি যে বিষয়গুলি উত্থাপন করেছিলেন তার মধ্যে ছিল এসএমইদের জন্য অর্থায়ন, ব্যাংক-সংক্রান্ত বিষয় এবং আর্থিক প্রণোদনা।উপরন্তু, তিনি শ্রমিকের অভাবের সমস্যা সমাধানে সাহায্য করার জন্য সরকারের কাছেও আবেদন করেছিলেন।  তাই আমরা বিষয়টি দেখার জন্য এই কার্যকরী কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ”

এসএমইদের জন্য প্রস্তাবিত অতিরিক্ত সাহায্য সরকারের কাছ থেকে অতিরিক্ত তহবিল বহন করবে কিনা জানতে চাইলে  মহিউদ্দিন বলেন, এটি বিদ্যমান বরাদ্দ বা প্রনোদনার মাধ্যমে করা যেতে পারে।


টাস্কফোর্স কাউন্সিলকে এক মাসের সময় দেওয়া হয়েছে  রিপোর্ট আসলে  বিস্তারিত জানা যাবে এবং সেই রিপোর্টের উপর ভিত্তি করে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করলে সুফল পাওয়া যাবে।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

20 − 7 =